মেয়েদের তালাক দেয়ার ক্ষমতা

তালাক-ই-তোফিজ স্ত্রীর নিজস্ব কোনো ক্ষমতা নয়৷ এটি স্বামী কর্তৃক প্রদত্ত ক্ষমতা৷ নিকাহনামা বা কাবিননামার ১৮ নং ঘরে স্বামী স্ত্রীকে তালাক প্রদানের ক্ষমতা অর্পণ করেছে কিনা? করে থাকলে কি শর্তে? এই প্রশ্নটি ছাপা থাকে৷ স্বামীর যে তালাক দেয়ার ক্ষমতা রয়েছে সে ক্ষমতাটি যদি স্বামী স্ত্রীকে কাবিননামার ১৮ নং ঘর পূরণের মাধ্যমে প্রদান করে তবে স্ত্রী নিজ থেকে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটাতে পারেন৷ স্ত্রীকে তালাক প্রদানের ক্ষমতা শর্তযুক্ত বা শর্তহীন হতে পারে৷ স্ত্রী কর্তৃক এরূপ তালাক উচ্চারণ করা হলে বা বিয়ে ছিন্ন করা হলে সে তালাকের নাম তালাক-ই-তোফিজ৷ এক্ষেত্রে যেহেতু স্ত্রী তালাক দিচ্ছেন তাই তালাক সংক্রান্ত নোটিশ চেয়ারম্যানের কাছে এবং এর কপি স্বামীর কাছে পাঠাতে হবে৷

talaq-o-talaq-prottahar-or-divorce-copyright-law-thinkers

তালাক-ই-তোফিজ মুসলিম আইনে একটি কার্যকর সংযোজন৷ তবে বেশীরভাগ ক্ষেত্রে আমাদের দেশে কাবিননামার ১৮ নং ঘরটি ফাকা থাকে৷ ফলে ১৯৩৯ সালে মুসলিম বিবাহ বিচ্ছেদ আইনে যে ঌটি কারণের কথা বলা আছে তা না থাকলে এবং খুলার মাধ্যমে স্বামীর কাছ থেকে বিচ্ছেদ না পেলে একটি মেয়ের পক্ষে বিয়ের বন্ধন থেকে মুক্তি পাওয়া দুরূহ হয়ে পড়ে৷ এই অসুবিধার কথা চিন্তা করে কাবিননামার ১৮ নং ঘরে হ্যা যা শব্দটি ছাপানো হয়েছে৷ যাতে স্ত্রী অপেক্ষাকৃত কম জটিলতায় তালাক-ই-তোফিজের মাধ্যমে মুক্তি পেতে পারে৷ নিকাহ্নামার ১৮ নং ঘরটি এজন্য অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে পূরণ করা উচিত৷ অনেকে এ বিষয়টি সম্পর্কে জানেনা এবং ঘরটি শূন্য থাকে৷ বিয়ে পড়ানোর সময় কাজীদের অবশ্যই দু’পক্ষকে এই ঘরটি সম্পর্কে বিশেষভাবে জানানো উচিত৷

Facebook Comments

Rayhanul Islam

রায়হানুল ইসলাম বর্তমানে আইন পেশায় নিয়জিত আছেন, এছাড়াও তিনি লেখালেখি করেন এবং ল হেল্প বিডির সম্পাদক। তথ্য ও প্রযুক্তি, মনোবিজ্ঞান এবং দর্শনে তার বিশেষ আগ্রহ রয়েছে। প্রয়োজনে: [email protected]

You may also like...

Leave a Reply

error: Content is protected !!
%d bloggers like this: