অগ্র-ক্রয় বা Preemption

অগ্র-ক্রয় (Preemption): আপনার পাশের জমির মালিক যদি আপনাকে না জানিয়ে জমিটি বিক্রি করে ফেলে তবে আপনি প্রি এ্যামশন বা অগ্রক্রয়ের অধিকারবলে ঐ জমিটি পুনরায় ক্রয় করে নিতে পারবেন । অগ্রক্রয় শব্দটির মানে হচ্ছে কোন সম্পত্তি ক্রয় করার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার ।

আপনি অগ্রক্রয়ের অধিকারযোগ্য হবেন যখন…..

1. আপনার পাশের জমিটি আপনার অগোচরে বিক্রি হয়ে গেছে ।
2. জমি বিক্রেতা যদি আপনার উত্তরাধীকারসূত্রে সহ অংশীদার হয় ।
আপনাকে এজন্য কোর্টে application করতে হবে।
1. কৃষি জমির ক্ষেত্রে জমি বিক্রয়ের রেজিস্ট্রেশনের তারিখ হতে ৩ বছরের মধ্যে ।
2. অকৃষি বা বসত ভিটা জমির ক্ষেত্রে এমন সময়ের কোন সীমাবদ্ধতা নেই । তবে যখন দাবি করতে যাবেন তখন প্রমান করতে হবে জমি বিক্রয়ের ব্যাপারটি আপনি এতদিন ধরে জানতেন না ।

Application এর সাথে কোর্টে যা যা জমা দিতে হবে।

কৃষি জমির জন্য: (SAT Act-1950, sec-96)

* জমি বিক্রয়ের সমপরিমান অর্থ
* ২৫% ক্ষতিপূরন (জমি মূল্যের উপর)
* ৮% হারে বার্ষিক হার সুদ (জমি মূল্যের উপর)
* জমিতে কোন উন্নয়ন বাবদ কোন খরচ করা হলে তার ব্যয় ।
অকৃষি জমির জন্য: (NAT Act-1949, sec-24)
* জমি বিক্রয়ের সমপরিমান অর্থ
* ১৫% ক্ষতিপূরন (জমি মূল্যের উপর)
* ৬.২৫% হারে বার্ষিক হার সুদ (জমি মূল্যের উপর)
* জমিতে কোন উন্নয়ন বাবদ কোন খরচ করা হলে তার ব্যয় ।
তারপর কোর্ট সম্পূর্ন ব্যাপারগুলো বিবেচনা করে জমি হস্তান্তর করবে। আপনি জমি না পেলে কোর্ট উল্লেখ্য অর্থ ফেরত দিবে ।

বাস্তব অভিজ্ঞতা থেকে কিছু সর্তকতা :
জমিটা যে দামে রেজিষ্ট্রেশন হয় সে টাকাটাই application এর সাথে জমা দিয়ে জমি নিতে হয় । আমাদের দেশে রেজিষ্ট্রেশন খরচ বাঁচানোর জন্য দলিলে জমির দাম কম দেখানো হয় । ফলে বাদি মামলা জিতলে প্রথমে ক্রয়কৃত ব্যক্তি উল্লেখিত (কমদামে) দামে বাদির কাছে জমি হস্তান্তর করতে বাধ্য

Facebook Comments

You may also like...

Leave a Reply

error: Content is protected !!
%d bloggers like this: